জীবন-বৃত্তান্ত

ড. এম. আবদুল আলীম মূলত একজন গবেষক ও প্রাবন্ধিক। জন্ম পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার গৌরীগ্রামে। পিতা মোঃ আব্দুল কদ্দুস, মাতা জাহানারা বেগম। শিক্ষাজীবন শুরু হাঁড়িয়াকাহন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর সাঁথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৯২ সালে এসএসসি এবং সাঁথিয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে ১৯৯৪ সালে প্রথম বিভাগে এইচএসসি পাশ করেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে ১৯৯৭ সালে বিএ (অনার্স) পরীক্ষায় প্রথম স্থান এবং ১৯৯৮ সালে এমএ পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন। এরপর ২০০৯ সালে ‘রবীন্দ্রোত্তর বাংলা কাব্যে বিচ্ছিন্নতার রূপায়ণ’ শীর্ষক অভিসন্দর্ভ রচনা করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। কর্মজীবন শুরু উল্লাপাড়া বিজ্ঞান কলেজের প্রভাষক হিসেবে। পরে বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তা হিসেবে ২০০৫ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ ও ২০১০ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ঢাকা কলেজে চাকুরি করেন। ২০১২ সালে যোগদান করেন নবপ্রতিষ্ঠিত পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক হিসেবে। এই বিভাগের প্রথম চেয়ারম্যান তিনি। বর্তমানে সহযোগী অধ্যাপক এবং মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন হিসেবে দায়িত¦ পালন করছেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ডেরও সদস্য। ছাত্রজীবন থেকেই লেখালেখি শুরু। এ পর্যন্ত প্রকাশিত গ্রন্থ ১১টি : ১. পাবনা অঞ্চলের লোকসংস্কৃতি (গতিধারা প্রকাশনী ২০০৮) ; ২. বাংলা কাব্যের স্বরূপ ও সিদ্ধি-অন্বেষা (গতিধারা প্রকাশনী, ২০০৯) ; ৩. বন্দে আলী মিয়া : কবি ও কাব্যরূপ (গতিধারা প্রকাশনী, ২০০৯) ; ৪. রবীন্দ্রোত্তর বাংলা কাব্যে বিচ্ছিন্নতার রূপায়ণ (বাংলা একাডেমী, ২০১০) ; ৫. বাংলা বানান ও উচ্চারণ শিক্ষা (গতিধারা প্রকাশনী, ২০১১) ; ৬. রবীন্দ্রনাথ : পঞ্চম দশ বছর (মূর্ধন্য প্রকাশনী, ২০১২) ; ৭. পাবনার ইতিহাস (গতিধারা প্রকাশনী, ২০১২) ; ৮. পাবনায় ভাষা আন্দোলন (প্রকাশ, ২০১৩) ; ৯. সুচিত্রা সেন (গতিধারা প্রকাশনী, ২০১৪) ; ১০. পাবনায় রবীন্দ্রনাথ-নজরল-বঙ্গবন্ধু (আগামী প্রকাশনী, ২০১৫) ; ১১. মুক্তিযুদ্ধের কিশোর ইতিহাস : পাবনা জেলা (২০১৬) গবেষণার স্বীকৃতিস্বরপ লাভ করেছেন ‘কাহ্নপা সাহিত্যচক্র সম্মাননা’ এবং ‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার।

পদবী

শিক্ষাগত যোগ্যতা

  • পি-এইচ. ডি ২০০৯

    বাংলা বিভাগ

    রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

  • এম এ ১৯৯৮

    বাংলা বিভাগ

    রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

পুরস্কার, সম্মাননা ও সংবর্ধনা

  • কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার

    ‘পাবনায় ভাষা আন্দোলন’ গ্রন্থের জন্য ড. এম আবদুল আলীম ২০১৪ সালে গবেষণা শাখায় ‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার’ লাভ করেন। পুরস্কার হিসেবে তাঁকে এক লক্ষ টাকার চেক, একটি ক্রেস্ট ও একটি সম্মাননাপত্র প্রদান করা হয়। ২০১৫ সালে রাজধানীর বেঙ্গল ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কথাসাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ড. আনিসুজ্জামান, কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ, কালি ও কলম পত্রিকার সম্পাদক আবুল হাসনাত, বেঙ্গল গ্রুপের চেয়ারম্যান লিটু আনাম প্রমুখ।

  • সংবর্ধনা, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

    ভাষা আন্দোলন বিষয়ক  গবেষণার জন্য ‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার-২০১৪’ লাভ করায় ড. এম আবদুল আলীমকে সংবর্ধনা দেয় পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। ২০১৫ সালের ৫ জুন বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ঐ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি স্পিকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি এমপি। সংবর্ধনা স্মারক হিসেবে একটি ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।

  • সংবর্ধনা, সাঁথিয়া ফাউন্ডেশন

    ভাষা আন্দোলন বিষয়ক গবেষণায় ‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার ২০১৪’ লাভ করায় ড. এম আবদুল আলীমকে সংবর্ধনা দেয় সাঁথিয়া ফাউন্ডেশন। সাঁথিয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত এই সংবর্ধনা-অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পাবনা জেলা পরিষদের তৎকালীন প্রশাসক জনাব এম. সাইদুল হক চুন্নু। সংবর্ধনা স্মারক হিসেবে একটি ক্রেস্ট প্রদান করা হয় এম. আবদুল আলীমকে।

  • সম্মাননা, মুক্তযোদ্ধা সংসদ, সাঁথিয়া

    শিক্ষাক্ষেত্রে অনন্য অবদানের জন্য ড. এম আবদল আলীমকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সাঁথিয়া কর্তৃক সম্মাননা প্রদান করা হয়। ২০১৬ সালের মার্চ মাসে সাঁথিয়া অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এক আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়।

  • কাহ্নপা সাহিত্যচক্র সম্মাননা

    রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগ থেকে বিএ (অনার্স) পরীক্ষায় প্রথম স্থান এবং এমএ পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করার জন্য এম. আবদুল আলীমকে ২০০১ সালে ‘কাহ্নপা সাহিত্যচক্র সম্মাননা প্রদান করা হয়। পুরস্কার হিসেবে একটি সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।